বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২৫ মাঘ, ১৪২৯ | ১৬ রজব, ১৪৪৪

মূলপাতা আওয়ামী লীগ

যে হাত দিয়ে মারতে আসবে, সে হাত ভেঙে দিতে হবে: শেখ হাসিনা


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :৮ ডিসেম্বর, ২০২২ ২:৪৯ : অপরাহ্ণ
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

সারাদেশে দলের প্রত্যেক নেতাকর্মীকে মাঠে সতর্ক অবস্থানে থাকার নির্দেশ দিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘১৯৭৫ সাল থেকে আমরা মার খাচ্ছি। আর মার খাওয়ার সময় নেই। যে হাত দিয়ে মারতে আসবে, সে হাত ভেঙে দিতে হবে।’

আজ বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের কেন্দ্রীয় কমিটি, ঢাকা মহানগর ও সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এই বার্তা দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিআরটিসির বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। এখন থেকে যে বাসে আগুন দিতে আসবে, তাকে ধরে আগে তার হাত আগুনে পুড়িয়ে দিতে হবে। বিএনপি লাঠি নিয়ে মারতে আসলে লাঠি দিয়েই জবাব দিতে হবে।’

আরও পড়ুন: সরকারের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড জনগণ বরদাস্ত করবে না: কর্নেল অলি

আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতি করে না জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘২০০১ সালের পর আওয়ামী লীগের এমন কোনো জনসভা নেই, যেখানে বিএনপি হামলা করেনি। বিএনপির আমলে লাঠির বাড়ি খান নাই, এমন একজনও নাই। আমাদের প্রত্যেকটা নেতাকর্মীর গায়ে তাদের মাইরের দাগ।’

বিএনপি-রাজাকারদের আর ক্ষমতায় আসতে দেওয়া হবে না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০০১ সালে গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে বিএনপি ক্ষমতায় আসতে পেরেছিল। এখনো ক্ষমতায় আসতে পারবে বলে তারা মনে করছে। তবে এতো সহজে এখন আর তা হবে না। আমরা জানি, কোথায় কী হবে। দেশকে নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে দেবো না।’

শেকা হাসিনা বলেন, ‘বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান সাজাপ্রাপ্ত আসামি। তাকে দেশে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য ব্রিটিশ সরকারে সঙ্গে যোগাযোগ করব। তারেক রহমানকে এ দেশে এনে সাজা বাস্তবায়ন করবো।’

গণমাধ্যমের মালিকদের ইঙ্গিত করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘অনেকে আছে বিএনপিকে তেল মারছে। এতো তেল মারা কিসের জন্য? কত তেল আছে, আমি তাদের দেখবো।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আওয়ামী লীগকে ভোট চুরির অপবাদ দেয়ার চেষ্টা করেছে বিএনপি। আওয়ামী লীগ জনগণের ভোট চুরি করে না। জনগণের ভোট সংরক্ষিত করে। এটা আমরা প্রমাণ করেছি।’

আওয়ামী লীগ ভেসে আসেনি-এমন হুঁশিয়ারি দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিএনপি জিয়াউর রহমানের উর্দি পরা পকেট থেকে বের হয়েছে। আওয়ামী লীগ কারো পকেটের সংগঠন না। মনে রাখা উচিত আওয়ামী লীগ ভেসে আসেনি। আওয়ামী লীগ জাতির পিতার হাতে গড়া সংগঠন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যে সব দেশ গণতন্ত্র নিয়ে কথা বলে তাদের দেশের গণতন্ত্র আমরা জানি। তাদের দেশে প্রতিদিন মানুষ খুন হয়। তাদের কাছে আমাদের গণতন্ত্র শিখতে হবে। বাংলাদেশে গণতন্ত্রের ধারা অব্যাহত থাকবে। বাংলাদেশের উন্নয়ন অব্যাহত থাকবে।’


আরও খবর