শুক্রবার, ২৭ মে, ২০২২ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ | ২৫ শাওয়াল, ১৪৪৩

মূলপাতা রাজধানী

শেষ ঈদের ছুটি, ঢাকায় ফিরছে মানুষ


রাজনীতি সংবাদ ডেস্ক প্রকাশের সময় :৫ মে, ২০২২ ১১:৩১ : পূর্বাহ্ণ
ফাইল ছবি

ঈদের ছুটি শেষে রাজধানী ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে কর্মজীবী মানুষ। বাস- ট্রেন-লঞ্চের ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ বাড়ছে। ঈদে নাড়ির টানে বাড়ি যাওয়া মানুষগুলো আবার জীবন ও জীবিকার তাগিদে ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজধানীর বাস টার্মিনাল, লঞ্চ টার্মিনাল ও রেলস্টেশনে মানুষ আসতে শুরু করেছে।

ভোরের দিকে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে ছেড়ে আসা লঞ্চগুলো সদরঘাট টার্মিনালে ফিরতে শুরু করে। প্রতিটি লঞ্চেই ভিড় না থাকলেও বিপুল সংখ্যক যাত্রী নিয়ে লঞ্চ গুলো ঢাকায় এসেছে।

বরিশাল থেকে সুন্দরবন ১০, সুরুভী ৯, পারাবাত ১৮, কীর্তনখোলা ২, মানামী নামের পাঁচটি লঞ্চ ভোর সাড়ে চারটার দিকে সদরঘাটে পৌঁছে।

এছাড়া বিআইড‌ব্লিউ‌টি‌সির এম‌ভি মধুম‌তি জাহাজটি ও বিপুল সংখ্যক যাত্রী নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছে। চাঁদপুর, শরীয়তপুর, মাদারীপুর, পটুয়াখালী, ভোলা, আমতলী, রাঙ্গাবালী, হুলারহাট, ভান্ডারিয়া সহ বিভিন্ন গন্তব্যের লঞ্চগুলো যাত্রী নিয়ে ঢাকায় পৌঁছেছে।

প্র‌তি‌টি লঞ্চেই যাত্রীর সংখ্যা স্বভাবিক সময়ের চেয়ে কিছুটা বেশি ছিল। আগামী শুক্রবার ও শনিবার থেকে এই ভিড় আরো বাড়বে।

এদিকে সড়কপথেও ঈদে ঘরে ফেরা মানুষ এখন ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। গাবতলী, মহাখালী ও সায়দাবাদ বাস টার্মিনালে ফিরে আসা বাসগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক যাত্রী ছিল।

দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে আসা বাসগুলোর পেছনদিকে আট-দশটি সিট খালি ছিল এছাড়া অন্য সব আসনেই যাত্রী এসেছে। দিগন্ত পরিবহনের যাত্রী আইয়ুব হোসেন জানান, শনিবার থেকেই অফিস শুরু হয়ে যাবে।

প্রথম দিনই অফিসে উপস্থিত থাকতে হবে এজন্যই ঝামেলা এড়াতে একটু আগেভাগেই তিনি তার পরিবার নিয়ে ঢাকায় ফিরেছেন। এজন্য ঈদ করেই চলে এসেছেন।

সোহাগ পরিবহনের যাত্রী ব্যবসায়ী নাজমুল হোসেন জানান, শুক্রবার থেকেই তিনি তার দোকান খুলবেন, এজন্য একদিন আগে ঢাকায় ফিরেছেন। পেছনদিকে কয়েকটি সিট খালি ছিল বাকি অন্য সিটে যাত্রী পরিপূর্ণ ছিল। আগামী দুই দিনের ভিতর অনেক বেশি হবে।

পরিবহন কর্মী জামাল উদ্দিন জানিয়েছেন, আজ থেকে ঢাকায় ফেরা শুরু হয়েছে। বেশিরভাগ বাসের একেবারে পেছনের সিট খালি আসছে। আর সব সিটেই যাত্রী আসছে। শুক্রবার থেকে সিট খালি থাকবে না।

এদিকে রেলপথেও ঢাকামুখী যাত্রীর চাপ বাড়তে শুরু করেছে। যেসব ট্রেনগুলো দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে কমলাপুর এসে পৌঁছেছে তাতে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক যাত্রী ছিল।

যশোর, খুলনা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে ঢাকামুখী ট্রেনগুলোর যাত্রীরা মূলত টঙ্গী থেকে যাত্রা শুরু করেন। এরপর বিমানবন্দর ক্যান্টনমেন্ট পেস্টিসিদে অনেক যাত্রী নেমে পড়েন। তারপর বাকিরা গিয়ে নামেন কমলাপুর রেলস্টেশন। সব ট্রেনের যাত্রীদের চাপ ছিল।


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর