বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২৫ মাঘ, ১৪২৯ | ১৬ রজব, ১৪৪৪

মূলপাতা রাজধানী

মগবাজারের বিস্ফোরণস্থল থেকে অসংখ্য স্প্লিন্টার উদ্ধার


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :২৪ জানুয়ারি, ২০২৩ ৫:১৯ : অপরাহ্ণ
আজ সকালে রাজধানীর মগবাজার ওয়্যারলেস মোড়ে একটি ওষুধের দোকানের সামনে থাকা একটি ময়লার ড্রামে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘট। ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর মগবাজারের ওয়্যারলেস মোড়ে বিস্ফোরণস্থল থেকে অসংখ্য স্প্লিন্টার উদ্ধার করা হয়েছে। সেখানে ময়লার ড্রামটিতে বিস্ফোরক দ্রব্য রেখে দেওয়া হয়েছিল, যা ময়লা সরানোর সময় বিস্ফোরিত হয়েছে বলে ধারণা করছে পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ডিবি) হারুন-অর রশীদ এ তথ্য জানান।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, ‘বিস্ফোরক দ্রব্যটি ময়লার একটি প্লাস্টিকের ড্রামের মধ্যে ছিল। ভেতর থেকে ময়লা বের করার সময় তা বিস্ফোরিত হয়। বিস্ফোরণের ঘটনাস্থল থেকে অসংখ্য স্প্রিন্টারও পাওয়া গেছে। কী উদ্দেশে বিস্ফোরকটি এখানে রাখা হয়েছিল আমরা সেটা বের করার জন্য কাজ করছি। বোম ডিস্পোজাল ইউনিট ঘটনাস্থলে এসেছিল, তারা স্প্রিন্টারগুলো আলামত হিসেবে নিয়ে গেছে।’

ডিবি প্রধান বলেন, ‘ময়লার ড্রামটিতে শক্তিশালী বিস্ফোরণে চারজন আহত হয়েছেন। একটা ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সামনে এটা কেন রাখা হয়েছিলো সেটা আমরা বের করার চেষ্টা করছি।’

এর আগে আজ সকাল ৯টা ৫০ মিনিটের দিকে ওয়্যারলেস মোড়ে সেন্ট মেরিস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের সামনে একটি প্লাস্টিকের ড্রামে বিস্ফোরণ ঘটে। এ ঘটনায় ৪ জন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আহতরা হলেন-সাইফুল ইসলাম (৩৬), মো. তারেক (২০), আবুল কালাম (২৫) ও মো. শাহীন (৩০)।

বর্তমানে তারা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের প্রধান অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি, আগে থেকেই ড্রামের ভিতরে কেউ বিস্ফোরকটি রেখে দিয়েছিল। অসাবধানতাবশত ফেলে দেওয়ার কারণে বিস্ফোরণটি ঘটে। বিস্ফোরকটা কে রেখেছিল বা কীভাবে এখানে এসেছে সেটা উদঘাটনের জন্য কাজ করছি।’

তিনি বলেন, ‘এটা কী ধরনের বিস্ফোরণ ছিলো, দেশি ককটেল নাকি অন্য কোনো বিস্ফোরক দ্রব্য তা জানার জন্য আমাদের বিশেষজ্ঞ টিম কাজ করছে।’

বিস্ফোরণের বিষয়ে সিটিটিসি কী সন্দেহ করছে জানতে চাইলে আসাদুজ্জামান বলেন, ‘আমরা প্রাথমিকভাবে কোনো কিছু সন্দেহ করছি না। ধারণা, কেউ হয়ত বিস্ফোরকটি রেখে গিয়েছিল। তবে মোটিভ জানতে পারলে আমরা এইটা বের করতে পারবো।’

এই বিস্ফোরণের সঙ্গে জঙ্গি কোনো সংশ্লিষ্টতা আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা এমন কোনো বিষয়ে সন্দেহ করছি না। তবে প্রাথমিকভাবে সকল বিষয়কে সামনে রেখে আমরা কাজ করছি।’


আরও খবর