শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১ | ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ | ২১ রবিউস সানি, ১৪৪৩

মূলপাতা বিএনপি

কারাগারে খালেদা জিয়াকে ‘স্লো পয়জনিং’ করা হয়েছিল কি না, প্রশ্ন ফখরুলের


নিজস্ব প্রতিবেদক প্রকাশের সময় :২৫ নভেম্বর, ২০২১ ৩:০৫ : অপরাহ্ণ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি অবস্থায় ‘স্লো পয়জনিং’ (ধীর গতির বিষ প্রয়োগ) করা হয়েছে কি না—তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে একটা পরিত্যক্ত ভবন থেকে খালেদা জিয়াকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়নি। সেদিন কি খালেদা জিয়াকে স্লো পয়জনিংয়ের কোনো ব্যবস্থা করা হয়েছিল? আমরা পরিষ্কার করে জানতে চাই।’

আজ বৃহস্পতিবার খালেদা জিয়ার মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে যুবদলের বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ প্রশ্ন তুলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এদের পক্ষে কিছুই অসম্ভব নয়। যারা জোর করে আগের রাতে ভোট ডাকাতি করে জোর করে ক্ষমতায় বসে থাকতে পারে, যারা অবলীলায় ৩৫ লক্ষ মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা করতে পার, অবলীলায় গণতান্ত্রিক কর্মীদের গুলি করে হত্যা করতে পারে, তাদেরকে পঙ্গু করে দিতে পারে, যারা আমাদের ৫০০ নেতা-কর্মীকে গুম করে দিতে পারে তাদের পক্ষে কিছুই অসম্ভব নয়।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘যার বয়স ৭৬, তাকে রাজনীতি থেকে দূরে সরিতে দিতে মিথ্যা মামলা দিয়ে বন্দি করে রাখা হয়েছিলো। পুরান ঢাকার পরিত্যক্ত ভবনে তাকে প্রায় ২ বছর আটক করে রাখা হয়েছে। তারপর তাকে পিজি হাসপাতালে এনেও চিকিৎসা দেয়নি।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘রাজধানীর এভার কেয়ার হাসপাতালে সিসিইউতে চিকিৎসাধীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। চিকিৎসকরা বলছেন, আমাদের বিদ্যা, জ্ঞান প্রায় সব শেষ। আমরা এখানে (দেশে) এর বেশি কিছু করতে পারবো না। তারা (খালেদা জিয়ার চিকিৎসকরা) পরিষ্কার করে বলছেন, অবিলম্বে তাকে বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দিতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগের মন্ত্রী, এমপিরাও বলছেন, মানবিক কারণে খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা উচিত। সারাদেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষও বলছে খালেদা জিয়ার বিদেশে উন্নত চিকিৎসা হোক। কিন্তু তিনি (প্রধানমন্ত্রী) চাচ্ছেন না? কারণ প্রতিহিংসা। তিনি দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে শুধু রাজনীতি থেকে নয়; জীবন থেকে নিশ্চিহ্ন করার চক্রান্ত করছেন। আমরা জানি আন্তর্জাতিকভাবেও তার ওপর চাপ আসছে কোনোটাই তিনি শুনছেন না।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে এই দেশের সবচেয়ে সংগ্রামী নেতা আপোসহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া। জনগণের চোখের ভাষা তিনি বুঝতে পারেন, তিনিই কিন্তু নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা সংবিধানে সংযুক্ত করেছিলেন। বিগত ওয়ান ইলেভেনের চক্রান্তের অংশ হিসেবে গণতন্ত্রের মাতা বেগম খালেদা জিয়াকে একটি মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে তাকে কারাগারে আটকে রাখা হয়।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘এ দেশটা তারা বিক্রি করে দিয়েছে। তারা গণতন্ত্রকে পুরোপুরি নির্বাসিত করে দিয়েছে-এর প্রমান আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন গণতান্ত্রিক দেশগুলো নিয়ে একটি ভার্চুয়াল সম্মেলন আহ্বান করেছেন, সেখানে বাংলাদেশের নাম নেই। নেপাল,পাকিস্তান ভারতেও আছে কিন্তু বাংলাদেশ নেই।’

যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নিরবের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুর পরিচালনায় সমাবশে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির আমানউল্লাহ আমান, আবদুস সালাম, যুবদলের মোরতাজুল করিম বাদরু, মোনায়েম মুন্না, নুরুল ইসলাম নয়ন, মামুন হাসান, স্বেচ্ছাসেবক দলের আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, কৃষক দলের শহীদুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ।

আরও পড়ুন:

মাধ্যমিক স্কুলে অনলাইনে ভর্তির আবেদন করার নিয়ম

একসঙ্গে ৯ জনকে বিয়ে করলেন এই যুবক


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর