মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০২২ | ২১ আষাঢ়, ১৪২৯ | ৫ জিলহজ, ১৪৪৩

মূলপাতা চট্ট-মেট্টো

চট্টগ্রামের পাঠানটুলীতে আ’লীগ কর্মীর বাড়িতে অস্ত্রের কারখানার সন্ধান


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :২৯ জানুয়ারি, ২০২১ ৫:০০ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম সিটির ভোটের পর দিন নগরীর ২৩ নম্বর পাঠানটুলী ওয়ার্ডে বংশাল পাড়ায় নিজাম খান নামের এক আওয়ামী লীগ কর্মীর বাড়িতে অভিযান চালিয়ে অস্ত্রের কারখানার সন্ধান পেয়েছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (২৮ জানুয়ারি) ভোররাত ২টার দিকে সেই অভিযানে দুইটি দেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও একটি এয়ার গান, অস্ত্র তৈরির ডায়াগ্রামসহ বিভিন্ন ধরনের লোহা কাটার সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় নিজাম খানের স্ত্রী মেহেরুন নেসা মুক্তাকে আটক করা হয়েছে। তবে নিজাম খানকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিজাম খান পাঠানটুলী বংশাল পাড়ায় মাদক ব্যবসায়ী, সন্ত্রাসী ও কিশোর গ্যাংয়ের গডফাদার হিসেবে পরিচিত। তিনি স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।

নিজাম খান ২৩ নম্বর পাঠানটুলী ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগ সমর্থিত নবনির্বাচিত কাউন্সিলর মোহাম্মদ জাবেদের ঘনিষ্ঠ সহযোগী। নিজাম জাবেদের ‘ডানহাত’ বলে এলাকায় প্রচার আছে। ।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার রাতে বংশাল পাড়ায় শাহ আলম নামের এক ব্যক্তি বাড়িতে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে নিজাম খান। শাহ আলমও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত। তার সাথেও কাউন্সিলর জাবেদের ঘনিষ্টতা রয়েছে। বংশাল পাড়া মাদক ব্যবসার আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধের জেরে নিজাম খান শাহ আলমের বাসায় গুলি ছুঁড়ে। পরে স্থানীয় লোকজন নিজাম খানকে ধাওয়া দিলে তিনি পালিয়ে যান। এরপর শাহ আলম পুলিশকে ফোন করে নিজাম খানের গোমর ফাঁস করে দেন।

বৃহস্পতিবার গভীর রাতে শাহ আলমের অভিযোগ পেয়ে ডবলমুরিং থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। পুলিশ শাহ আলমের বাসার পাশ থেকে দুটি গুলির খোসা উদ্ধার করে। এরপর নিজাম খানের দুই তলা বাড়িতে হানা দেয় পুলিশ। বাড়ির ছাদে কবুতরের ঘরের ভেতর থেকে দুইটি দেশি আগ্নেয়াস্ত্র ও একটি এয়ার গান, অস্ত্র তৈরির ডায়াগ্রামসহ বিভিন্ন ধরনের লোহা কাটার সরঞ্জাম উদ্ধার করে পুলিশ। এসব সরঞ্জাম দিয়ে ঘরে বসেই নিজাম অস্ত্র তৈরি করতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছে, অভিযানের সময় পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে বাাড়ি থেকে পালিয়ে যান নিজাম খান।

পাঠানটুলী ওয়ার্ডের স্থানীয় লোকজন জানিয়েছেন, সদ্য সমাপ্ত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে জাবেদের নির্বাচনী প্রচারণায় ‘ছায়াসঙ্গী’ ছিলেন নিজাম খান। শুধু নির্বাচন নয়, এলাকার বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে জাবেদের সাথে নিজাম খানকে প্রায় সময় দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন তারা।

জাবেদের সাথে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তোলা নিজাম খানের একাধিক ছবি রাজনীতি সংবাদের কাছে এসেছে।

২৩ নম্বর পাঠানটুলী ওয়ার্ডের নবনির্বাচিত কাউন্সিলর ও মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য মোহাম্মদ জাবেদ রাজনীতি সংবাদের কাছে স্বীকার করেছেন, নিজাম খান আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।

নিজাম খানের সাথে সম্পর্কের বিষয়ে জানতে চাইলে মোহাম্মদ জাবেদ রাজনীতি সংবাদকে বলেন, ‘শুধু নিজাম কেন, এলাকার শত শত মানুষ আমার সাথে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন।’

নিজামের বাড়ি থেকে অস্ত্র উদ্ধারের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সন্ত্রাসী যেই হোক কাউকে প্রশ্রয় দেওয়া হবে না।’

এলাকার বিভিন্ন কর্মকান্ডে আপনার সাথে তো নিজামকে দেখা গেছে। এটা কি প্রশ্রয় দেওয়া নয় ?- এ প্রশ্নের উত্তরে কাউন্সিলর জাবেদ বলেন, ‘রেজাউল (নবনির্বাচিত সিটি মেয়র) ভাইয়ের সাথেও তো এরকম অনেক লোককে দেখা যায়। তাহলে কি তিনিও তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছেন ?’

শুধু কাউন্সিলর জাবেদ নয়, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক উপ-প্রচার সম্পাদক আজিজুর রহমান আজিজের সাথেও নিজামের সখ্যতা রয়েছে বলে স্থানীয় সূত্র থেকে জানা গেছে। রাজনীতি সংবাদের কাছে আসা একটা ছবিতে নিজাম খানকে আজিজ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে দেখা যায়।

এ বিষয়ে আজিজুর রহমান আজিজ রাজনীতি সংবাদকে বলেন, ‘আমার সাথে সন্ত্রাসী নিজামের কোনো সম্পর্ক নেই। নিজাম কাউন্সিলর জাবেদের লোক।’

এ ঘটনার বিষয়ে গণমাধ্যমকে অবহিত করতে আজ দুপুরে ডবলমুরিং থানায় সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। কিন্তু সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ নিজাম খানের রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ডের বিষয়ে কোনো তথ্য জানায় নি।

এ বিষয়ে ডবলমুরিং থানার ওসি মোহাম্দ মহসিন রাজনীতি সংবাদকে বলেন, নিজাম খানের রাজনৈতিক ব্যাকগ্রাউন্ডের বিষয়ে আমাদের কোনো তথ্য জানা নেই। তাকে গ্রেফতার করলে আমরা বিস্তারিত জানতে পারবো।

এ ঘটনায় নিজাম খান, তার স্ত্রী মেহেরুন্নেসা এবং অপর এক সহযোগীর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন শাহ আলম।

 


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর