বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ২০ জিলকদ, ১৪৪৫

মূলপাতা ইসলামী দল

ঢাকায় ইসরায়েলি বিমান অবতরণ জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি: জামায়াত


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :১২ এপ্রিল, ২০২৪ ১১:১৩ : পূর্বাহ্ণ
Rajnitisangbad Facebook Page

ঢাকা শাহজালাল বিমানবন্দরে কূটনৈতিক সম্পর্ক বহির্ভূত ইসরায়েলি দুটি বিমান অবতরণ করা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জামায়াতে ইসলামী।

দলটির সেক্রেটারি জেনারেল অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেছেন, যে রাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, সেই রাষ্ট্রের বিমানের অবতরণ রহস্যজনক ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ।

আজ শুক্রবার রাতে এক বিবৃতিতে তিনি এ উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গত ৭ ও ১১ এপ্রিল দুটি ইসরায়েলি দুটি কার্গো বিমান তেল আবিবের বেন গুরিয়ন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

ন্যাশনাল এয়ার কার্গো ইনকর্পোরেটেড ইউএসএ দ্বারা নিবন্ধিত ও পরিচালিত পণ্যসম্ভার বিমানটি (ফ্লাইট নম্বর N8806) ৭ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টা ২৩ মিনিটে তেল আবিব থেকে উড়ে ঢাকায় অবতরণ করে এবং একই দিনে ঢাকা থেকে ছেড়ে যায়।

একই কোম্পানির দ্বারা পরিচালিত দ্বিতীয় ফ্লাইটটি (ফ্লাইট নম্বর N8848 (NCR848)) ১১ এপ্রিল সন্ধ্যা ৭টা ৫৪ মিনিটে সরাসরি তেল আবিব থেকে উড়ে ঢাকায় আসে এবং ১২ এপ্রিল ঢাকা ছেড়ে যায়। ফ্লাইট দুটি বাংলাদেশ থেকে রওনা হওয়ার পর সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ বিমানবন্দরে তাদের পরবর্তী স্টপেজ করে।

ঢাকায় ইসরায়েলি বিমান অবতরণের ঘটনায় জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল মিয়া গোলাম পরওয়ার বলেন, ‘গাজায় গণহত্যাকারী মানবতার দুশমন ইসরায়েলি দুটি কার্গো বিমান কোন কারণে, কী উদ্দেশ্যে বাংলাদেশের বিমানবন্দরে অবতরণ করলো এবং অবতরণের পর তারা কী কাজে সময় ব্যয় করেছে তা বাংলাদেশের মানুষ জানতে চায়।’

এ জামায়াত নেতা বলেন, ‘ইসরায়েল থেকে বাংলাদেশে সরাসরি ফ্লাইটের কোনো নজির নেই। জরুরি অবতরণ ছাড়া বাংলাদেশে পণ্য বহনকারী ইসরায়েলি ফ্লাইটের অবতরণ একটি নজিরবিহীন ঘটনা। কারণ বাংলাদেশ ও ইসরায়েলের মধ্যে আনুষ্ঠানিক কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই। আর বাংলাদেশ আনুষ্ঠানিকভাবে ইসরায়েলকে রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতিও দেয়নি। যে রাষ্ট্রের সঙ্গে বাংলাদেশের কোনো কূটনৈতিক সম্পর্ক নেই, সেই রাষ্ট্রের বিমানের অবতরণ রহস্যজনক ও জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি স্বরূপ।’

গোলাম পরওয়ার বলেন, ‘বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী গাজায় গণহত্যাকারী মানবতার দুশমন ইসরায়েলের বিরুদ্ধে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বক্তব্য রেখে আসছেন। ৭ এপ্রিল ইসরায়েলের বিমান অবতরণের ৬ পর দিন আরও একটি বিমান অবতরণের পর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত করেছে। অথচ সরকার জাতির সামনে ঘটনার রহস্য এখনো উন্মোচন করেনি। সরকারের এ নীরবতা আমাদেরকে উদ্বিগ্ন করেছে। আমরা অবিলম্বে ইসরাইলি বিমান অবতরণের বিষয়ে সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা দিয়ে জাতিকে উদ্বেগ থেকে মুক্ত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’

আরও পড়ুন: ঈদের মাঝেই বাংলাদেশে ঘটে গেলো নজিরবিহীন একটি ঘটনা

মন্তব্য করুন
Rajnitisangbad Youtube


আরও খবর