শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২২ | ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ১৪ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪

মূলপাতা আঞ্চলিক রাজনীতি

কোম্পানিগঞ্জে কাদের মির্জার ডাকে হরতাল চলছে, সমর্থকদের পিকেটিং


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১১:০০ : পূর্বাহ্ণ

জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি), কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি ও পরিদর্শককে (তদন্ত) প্রত্যাহারের দাবিতে আজ (১৮ ফেব্রুয়ারি) বৃহস্পতিবার সকাল থেকে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জার ডাকে আধাবেলা হরতাল পালিত হচ্ছে। সকাল ৬টায় শুরু হওয়া এই হরতাল চলবে দুপুর ২টা পর্যন্ত।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ভাই কাদের মির্জার ডাকে এ হরতালে পিকেটিং করছে তার সমর্থকরা। রাজপথে তারা মিছিলও করেছে। তারা কোম্পানীগঞ্জ এলাকায় কোনো যানবাহন প্রবেশ করতে দিচ্ছে না। হরতালে দোকানপাট, ব্যাংক-বীমা-অফিস বন্ধ রয়েছে। রাস্তায় মানুষের উপস্থিতি কম দেখা গেছে। যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় সাধারণ যাত্রীদের দুর্ভোগের মধ্যে পড়তে হচ্ছে। এ রির্পোট লেখা পর্যন্ত (সকাল ১১ টায়) কোথাও অপ্রীতিকর কোনো ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

গতকাল বুধবার দুপুর ১টায় কাদের মির্জা তার কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ হরতাল কর্মসূচির ঘোষণা করেন।

এর আগে নোয়াখালী জেলা প্রশাসক খোরশেদ আলম খানঁ, পুলিশ সুপার (এসপি) মো: আলমগীর হোসেন, কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি ও ওসি তদন্ত রবিউল হকের প্রত্যাহার এবং কোম্পানীগঞ্জ চরকাঁকড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ ও তার আশ্রয়দাতা মিজানুর রহমান বাদল এবং ফখরুল ইসলাম রাহাতকে গ্রেফতারের দাবিতে মঙ্গলবার রাত ৯টা থেকে বুধবার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত কোম্পানীগঞ্জ থানার সামনে তার কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন কাদের মির্জা।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ চরকাঁকড়া ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা ফখরুল ইসলাম সবুজ টেকেরবাজারে তার কিছু অনুসারীদের নিয়ে কাদের মির্জার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেন। প্রতিবাদ সমাবেশে সবুজ কাদের মির্জার বিরুদ্ধে অশালীন বক্তব্য দেন। খবর পেয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানা ঘটনাস্থলে গিয়ে ফখরুল ইসলাম সবুজকে আটক করে। পরে তাকে পুলিশ ছেড়ে দেয়ার খবর পেয়ে দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকদের নিয়ে কাদের মির্জা নিজেই থানার ফটক অবরোধ করে অবস্থান নেন।


আরও খবর