বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই, ২০২২ | ২৩ আষাঢ়, ১৪২৯ | ৭ জিলহজ, ১৪৪৩

মূলপাতা খেলা

মায়ার্সের মহাকাব্যিক ইনিংসে কাঁদলো বাংলাদেশ


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ৫:২৫ : অপরাহ্ণ

চট্টগ্রাম টেস্টে অভিষিক্ত কাইল মায়ার্সে ভর করে মোমিনুলদের বিপক্ষে অসাধ্যকে সাধন করলেন ক্যারিবিয়রা। কাইল মায়ার্স পুরো টেস্টে একবারের জন্যেও বুঝতে দেননি এটিই তার প্রথম টেস্ট। বাংলাদেশি বোলারদের শাসন করে সাগরিকায় রীতিমতো দাপট দেখালেন সফরকারী এই ব্যাটসম্যান। চতুর্থ দিন ৩৭ রানে অপরাজিত থেকে শেষ করেছিলেন। শেষদিনে সেখান থেকে নিজের ইনিংসকে টেনে নিয়ে গেলেন অনন্য উচ্চতায়। নাম লেখালেন রেকর্ড বইয়ে। খেললেন ২১০ রানের মহাকাব্যিক এক ইনিংস। ৩১০ বলে তার ইনিংসটি সাজানো ছিল ২০ বাউন্ডারি ও সাত ছক্কায়।লিখলেন জয়ের গল্প। দলকে জয়ের বন্দরে ভিড়িয়ে তবেই ছাড়লেন মাঠ।

টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রান করা ক্রিকেটার এখন মায়ার্স। একই সঙ্গে টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে প্রথম ডাবল সেঞ্চুরিয়ান তিনি। আর ষষ্ঠ ক্রিকেটার হিসেবে চতুর্থ ইনিংসে অভিষেকে করেছেন দ্বিশতক।

যে মাঠে আগে কোনো দল ৩১৭ রানের বেশি তাড়া করে জিততে পারেনি, সেখানে ৭ উইকেটে ৩৯৪ পেরিয়ে বাংলাদেশকে হারিয়ে দিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের এটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড। এর আগে তারা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৪৪৮ রান পাড়ি দিয়েছে।

লক্ষ্যটা ছিল বিশাল। ৩৯৫ রানের বড় লক্ষ্যের জবাব দিতে নেমে ৫৯ রানে তিন উইকেট হারিয়ে বসে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শুরুর সেই চাপ সামলে অভিষিক্ত ক্রিকেটার কাইল মায়ার্সের ব্যাটে অবিশ্বাস্যভাবে চট্টগ্রাম টেস্টে ঘুরে দাঁড়ায় সফরকারী দল। মায়ার্সের ইতিহাস গড়া ডাবল সেঞ্চুরিতে বাংলাদেশের রান পাহাড় টপকে তিন উইকেটে জয় তুলে নিয়েছে ক্যারিবীয়রা।

এই জয়ের সুবাদে দুই ম্যাচ সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

চট্টগ্রামে মুখ থেকে শিকার হারানো ক্ষুধার্ত বাঘের দশা বাংলাদেশের। আগের দিন জয়ের স্বপ্ন দেখা ম্যাচটা ক্যারিবীয়দের কাছে হারের তীব্র যন্ত্রণা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হলো মুমিনুলবাহিনীকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে হেরেছে না বলে ম্যাচে অভিষিক্ত কাইল মায়ার্স ও এনক্রুমা বোনারের কাছে হেরেছে বলাই ভালো।

চট্টগ্রাম টেস্টে টস জিতে আগে ব্যাটিংয়ে নেমে মেহেদী হাসান মিরাজের সেঞ্চুরি আর সাকিব-সাদমানের জোড়া ফিফটিতে ভর করে ৪৩০ রান করে বাংলাদেশ। জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে অফ স্পিনার মেহেদীর ঘূর্ণি বলে বিভ্রান্ত হয়ে ২৫৯ রানে অলআউট হয় ক্যারিবীয়রা।

১৭১ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ দল স্কোর বোর্ডে ১ রান জমা করতেই হারায় ২ উইকেট। তবে অধিনায়ক মুমিনুল হকের সেঞ্চুরি আর লিটন দাসের ফিফটিতে ভর করে আট উইকেটে ২২৩ রান করে ৩৯৪ রানের লিড নিয়ে ইনিংস ঘোষণা করে।

জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে চতুর্থ দিনে মেহেদী হাসান মিরাজের অফ স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ৫৯ রানে ৩ উইকেট হারানো উইন্ডিজ দিন শেষ করে ১১০/৩ রানে।

রোববার শেষ দিনে ব্যাটিংয়ে নেমে দায়িত্বশীলতার পরচয় দেন কাইল মায়ার্স ও এনকেরুমা বোর্ন। চতুর্থ উইকেটে তাদের ২১৬ রানের জুটিতে জয়ের ভিত পায় ক্যারিবীয়রা। ৮৬ রানে তাইজুল ইসলামের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে এনকেরুমা আউট হলেও দলের জয়ে শেষ দিনের শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যান কাইল মায়ার্স। ক্যারিবীয় লোয়ারঅর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে লড়াই চালিয়ে দলের জয় নিশ্চিত করেন কাইল মায়ার্স।

 

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ : ৪৩০/১০ (১৫০.২ ওভার) ও ২২৩/৮ (ডি.)

ওয়েস্ট ইন্ডিজ : ২৫৯/১০ ও ৩৯৫/৭ (১২৭.৩ ওভার) (ব্র্যাথওয়েট ২০, ক্যাম্পবেল ২৩, মোজলে ১২, বোনার ৮৬, ব্লাকউড ৯, ডি সিলভা ২০, মায়ার্স ২১০ , কেমার রোচ ০, কর্নওয়াল ০;মুস্তাফিজ ১৩-১-৭১-০, তাইজুল ৪৫-১৮-৯১-২, মিরাজ ৩৫-৩-১১৩-৪, নাঈম ৩৪.৩-৪-১০৫-১)।

ফল : তিন উইকেটে জয়ী ওয়েস্ট ইন্ডিজ।


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর