বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ | ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ১২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪

মূলপাতা আন্তর্জাতিক

মিয়ানমারে সেনাশাসনবিরোধী বিক্ষোভ, রাস্তায় শত শত মানুষ


রাজনীতি সংবাদ ডেস্ক প্রকাশের সময় :৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ১২:১৫ : অপরাহ্ণ
People take part in a noise campaign on the street after calls for protest against the military coup emerged on social media, in Yangon on February 5, 2021. (Photo by YE AUNG THU / AFP)

মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থানের বিরুদ্ধে দেশটির শত শত মানুষ বিক্ষোভে নেমেছে। শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) দেশটির প্রধান বড় শহর ইয়াঙ্গনে এই বিক্ষোভ দেখা যায়।

গত সোমবার জনগণের ভোটে নির্বাচিত অং সান সু চি সরকারকে উৎখাত করে সামরিক বাহিনী ক্ষমতা দখল করে নেয়।

পরে দেশজুড়ে ভিন্নমতাবলম্বীদের প্রতি দমনপীড়ন শুরু করে দেয়া সেনাবাহিনী। সু চিসহ দেশটির অধিকাংশ আইনপ্রণেতাকে গ্রেফতার করা হয়।

বিক্ষোভকারীরা সেনা স্বৈরশাসক, ব্যর্থ ব্যর্থ, গণতন্ত্রের জয় জয় বলে স্লোগান দিতে থাকে। বিক্ষোভে ক্ষমতাসীন ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি দলের লাল পতাকা উড়িয়ে ‘সামরিক একনায়ক সরে দাঁড়াও’ বলে বিক্ষোভকারীদের স্লোগান দিতে দেখা গেছে।

সামরিক সরকারের ধরপাকড় অগ্রাহ্য করে এদিন তরুণেরা রাস্তায় বেরিয়ে পড়েন। ফেসবুকসহ সামাজিকমাধ্যম ও দেশজুড়ে ইন্টারনেট সংযোগ বন্ধ করে দিয়েও বিক্ষোভকারীদের দমিয়ে রাখা যায়নি।

ইয়াঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে লোকজন বিক্ষোভ নিয়ে এগিয়ে যান। এ সময় সেনাবাহিনীর নিয়ন্ত্রণ প্রতিরোধের প্রতীক হয়ে ওঠা তিন আঙুলের অভিবাদন প্রদর্শন করতে দেখা গেছে তাদের।

গত সোমবার দেশটিতে সেনা অভ্যুত্থানে সু চি এবং অন্য নেতাদের আটক করার পর এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ।

বিক্ষোভকারীরা সু চি এবং অন্য নেতাদের আটক নেতাদের মুক্তি দিতে সেনাদের আহ্বান জানান। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষকেরা শুক্রবার ইয়াঙ্গনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ দেখায় এবং অং সাং সু চির পক্ষে শ্লোগান দেয়। তারা লাল রঙের রিবন পরে ছিল।

দাগন ইউনিভার্সিটির প্রাঙ্গণে শুক্রবার বিকেলে কয়েকশ ছাত্র-শিক্ষক তিন আঙ্গুলের স্যালুট প্রদর্শন করছিল। এই স্যালুট এই এলাকার বিক্ষোভকারীরা রপ্ত করেছে স্বৈরতন্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসেবে।

বার্তা সংস্থা এএফপিকে মিন সিথু নামের এক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা আমাদের প্রজন্মকে এই ধরণের সেনাবাহিনীর একনায়কতন্ত্রের কারণে ভোগান্তির শিকার হতে দিতে পারি না।

এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যা নাগাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের পর টুইটার এবং ইনস্টাগ্রামকে ব্লক করার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। দেশটির প্রধান ইন্টারনেট সেবাদাতাদের একটি, টেলিনর নিশ্চিত করছে, তাদেরকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গ্রাহকদেরকে ওই দুটি সাইটে প্রবেশ থেকে বিরত রাখতে বলা হয়েছে।

এর আগে স্থিতিশীলতার লক্ষ্যে বৃহস্পতিবার ফেসবুক ব্লক করার নির্দেশ দিয়েছিলেন অভ্যুত্থানের নেতারা।

সূত্র: এএফপি, বিবিসি

 


আরও খবর