শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২২ | ২৪ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ১৪ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪

মূলপাতা চসিক নির্বাচন স্পেশাল

চসিক নির্বাচন সুষ্ঠু হবে, সিইসিকে আশ্বস্ত করলেন আইনশৃঙ্খলাবাহিনী


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ৪:০০ : অপরাহ্ণ

ভোটের তিন দিন আগে চট্টগ্রামে এসে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা নির্বাচন সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর সঙ্গে বৈঠক করে তাদের বক্তব্য শুনে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন সুষ্টু হবে বলে আশ্বস্ত হয়েছেন।

রোববার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে চট্টগ্রামে সার্কিট হাউসে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী ও বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এ মন্তব্য করেন।

কে এম নূরুল হুদা বলেন, নির্বাচনকে ঘিরে উৎসবের সৃষ্টি হয়েছে। বিপুল পরিমাণ মানুষ প্রচারণায় অংশগ্রহণ করছে। পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, আনসার, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, র‌্যাব ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিদের বক্তব্য আমরা শুনেছি। তারা সবাই নির্বাচনের পরিবেশ-পরিস্থিতি নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। প্রত্যেকে আশাবাদী ২৭ জানুয়ারির চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন সুষ্টু, নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ ও গ্রহণযোগ্য হবে।

সিইসি বলেন, নির্বাচনে অংশ নেওয়া একজন প্রার্থীর পরিচয় সে শুধুই একজন প্রার্থী। সে কোন দলের, মতের, গোত্রের সেটা বড় পরিচয় নয়। সকল প্রার্থীকে নির্বাচনী প্রচারণায় আইনি সহায়তা দেওয়ার দায়িত্ব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। নির্বাচন উপলক্ষে কয়েকজন নিরীহ ব্যক্তির জীবন চলে গেছে। এভাবে সংঘাত সংঘর্ষে জীবন চলে যাবে এটা হতে পারে না।

বিএনপির মেয়র প্রার্থীর ভোটের দিন সেনা মোতায়েনের দাবি প্রসঙ্গে নূরুল হুদা বলেন, সেনা মোতায়েনের কোনো পরিকল্পনা তাদের নেই, তার প্রয়োজনীয়তাও কমিশন অনুভব করছে না। যেখানে ইভিএমে ভোট হবে সেখানে সশস্ত্র পুলিশ পাহারা থাকবে। ভেতরে একজনের ভোট আরেকজন দেওয়া, সেটা সম্ভব না।

বিএনপি প্রার্থীদের নির্বাচনী এজেন্ট এবং সমর্থকদের বাসায় গিয়ে পুলিশ হয়রানির অভিযোগ প্রসঙ্গে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে সিইসি বলেন, বাড়ি বাড়ি গিয়ে নিষ্প্রয়োজনে হয়রানি করছে, এমন কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে নেই। যাদের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা আছে এবং আদালতের ওয়ারেন্ট আছে, অবশ্যই পুলিশ তো তাদের গ্রেপ্তার করার জন্য চেষ্টা করতে পারে। নিরপরাধ কোনো ব্যক্তির বিরুদ্ধে তাদের অভিযান নেই।

তিনি জানান, শনিবার পর্যন্ত জমা পড়া ৫৬টি অভিযোগের মধ্যে ৩৫টি নিষ্পত্তি হয়েছে এবং বাকিগুলো তদন্তনাধীন।

ভোটের দিন সাধারণ ছুটি না রাখার বিষয়ে সিইসি বলেন, কেবিনেট থেকে একটা নির্দেশনা জারি আছে। যারা ব্যক্তিগত বা সরকারি কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োজিত থাকবেন, তাদের যেন ভোট দেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়। এ কারণে সাধারণ ছুটি রাখি না।

চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন-সিনিয়র সচিব মো. আলমগীর। এসময় উপস্থিত ছিলেন-চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. মমিনুর রহমান ও চসিক নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান প্রমুখ।


আরও খবর