বৃহস্পতিবার, ৭ জুলাই, ২০২২ | ২৩ আষাঢ়, ১৪২৯ | ৭ জিলহজ, ১৪৪৩

মূলপাতা জাতীয়

দর্শকদের হলে ফেরানোর মতো চলচ্চিত্র নির্মাণ করুন: প্রধানমন্ত্রী


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :১৭ জানুয়ারি, ২০২১ ১২:৪৭ : অপরাহ্ণ

দর্শকদের হলে ফেরানোর মতো চলচ্চিত্র বানানোর তাগিদ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমাদের এই শিল্প নষ্ট হয়ে যাক, তা আমরা চাই না। সিনেমাগুলো সেভাবেই তৈরি করতে হবে যেন পরিবার নিয়ে দেখা যায়। শিশুদের জন্যও সিনেমা তৈরি করতে হবে যেন তারা সিনেমা দেখে শিক্ষা নিয়ে জীবনকে প্রস্তুত করতে পারে।

আজ (১৭ জানুয়ারি) রোববার বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার-২০১৯ প্রদান অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরে চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘সরকারি অনুদানে যাতে চলচ্চিত্র নির্মাণ হয়, সেই পদক্ষেপ নেওয়া এবং সেই আর্থিক সহায়তা বৃদ্ধি করা…সেটাও আমরা করে দিয়েছি। আমি অনেকের খুব দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থা দেখেছি। আমি যতক্ষণ আছি, ততক্ষণ সহযোগিতা করে যাব। কিন্তু, আমি যখন থাকব না, তখন কী হবে? সেই চিন্তা করেই কিন্তু ট্রাস্ট গঠন করা হয়। আমরা অবশ্য নাম দিয়েছি চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট, কিন্তু এই কল্যাণ ট্রাস্টে চলচ্চিত্রের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার যাতে সুযোগটা হয়, সে ব্যবস্থাটাও কিন্তু আমি করে দিয়েছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উপজেলা পর্যায়ে সিনেমা হল নির্মাণে সরকার এক হাজার কোটি টাকার তহবিল গঠন করছে। চলচ্চিত্রে আধুনিক প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে। উপযুক্ত প্রশিক্ষণ নিয়ে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের আরো সমৃদ্ধ হতে হবে, বিশ্ব দরবারে নিতে হবে বাংলা চলচ্চিত্রকে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

সভাপতির বক্তব্যে তিনি বলেন, চলচ্চিত্রের স্বর্ণালী দিন ফিরিয়ে আনতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় এক হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠন করা হচ্ছে। এ তহবিল থেকে স্বল্প সুদে ঋণ নিয়ে যে সকল সিনেমা হল বন্ধ হয়ে গেছে সেগুলো চালু করা যাবে।

২০১৯ সালে নির্মিত চলচ্চিত্রগুলোর মধ্য থেকে ২৫টি ক্যাটাগরিতে ৬টি যুগ্মসহ মোট ৩১ জনকে জাতীয় পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত করে জুরি বোর্ড। এর সঙ্গে চলচ্চিত্রে বিশেষ অবদানের জন্য মাসুদ পারভেজ (সোহেল রানা) ও কোহিনুর আক্তার সুচন্দা এ বছর আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

১৯৭৬ সালের ৪ এপ্রিল প্রথম চলচ্চিত্র পুরস্কার দেওয়া হয়। ২০০৯ সালে প্রথম চালু করা হয় আজীবন সম্মাননা পুরস্কার। গত বছরের ৩ ডিসেম্বর তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার ২০১৯ প্রজ্ঞাপন জারি হয়।


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর