মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১২ আশ্বিন, ১৪২৯ | ৩০ সফর, ১৪৪৪

মূলপাতা বিএনপি

সরকার পরিবর্তনে ‘বৃহত্তর গণঐক্য’র আহ্বান ফখরুলের


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :১১ জানুয়ারি, ২০২১ ৩:৫৫ : অপরাহ্ণ

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, শুধু নির্বাচন কমিশনই নয়, সরকার পরিবর্তনে ‘বৃহত্তর গণঐক্য’দরকার। আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই সরকারকে সারানোর জন্য আন্দোলন শুরু করি।

আজ (১১ জানুয়ারি) সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মহানগর বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ কথা বলেন। পৌরসভা নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনের ব্যর্থতা ও প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ কমিশনারদের পদত্যাগের দাবিতে এই মানববন্ধনের আয়ােজন করা হয়। সারাদেশে জেলা ও মহানগরেও এই কর্মসূচি পালন করা হয়।

সরকারের কঠোর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, এই সরকার অনির্বাচিত সরকার, ভোট ডাকাতির সরকার। খুব পরিষ্কারভাবে বলতে চাই, এখনও সময় আছে পদত্যাগ করুন। তা না হলে এদেশের মানুষের যে ইতিহাস, সেই ইতিহাসে এদেশের মানুষ অবশ্যই একদিন জাতীয়ভাবে ঐক্যবদ্ধ হবে, সংঘবদ্ধ হবে এবং আপনাদের চলে যেতে বাধ্য করবে।

নির্বাচন কমিশনের সমালোচনা করে তিনি বলেন, বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মাহবুব সাহেব বাদে প্রধান নির্বাচন কমিশনারসহ অন্যান্য কমিশনার ও কর্মকর্তা-কর্মচারী যারা আছেন, তারা আজকে এদেশের সবচেয়ে ঘৃণিত ধিকৃত প্রতিষ্ঠান।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা এ নির্বাচন কমিশনের পদত্যাগ দাবি করেছি। কিন্তু আজকে আপনারা লক্ষ্য করছেন, এদেশে যারা বুদ্ধিজীবী আছেন এমনকি বিদেশী সংস্থা গুলো স্পষ্টভাবে বলছেন এই নির্বাচন কমিশনকে সরাতে না পারলে কখনো সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না। সত্যিকার অর্থেই এ নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনোদিন অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব হবে না।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, প্রধান নির্বাচন কমিশনসহ কমিশনারগণ আপনাদের যদি ন্যূনতম কোনো লাজ-লজ্জ্বা থাক যেটা আপনাদের নাই, আজ পর্যন্ত দেখিনি। আপনাদের এখনই পদত্যাগ করা উচিত, এই মুহূর্তে পদত্যাগ করা উচিত। অন্যথায় এদেশের মানুষ আপনাদেরকে সরে যেতে বাধ্য করবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, ২০০৭ সালের জানুয়ারি ১১ জানুয়ারি দেশীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে একটি অবৈধ তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠন করা হয়েছিল। তারা অত্যন্ত সুপরিকল্পিত ও সচেতনভাবে বাংলাদেশে বিরাজনীতিকরণের প্রক্রিয়া চালু করেছে। তারা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সহ অসংখ্য রাজনীতিককে গ্রেফতার করে মিথ্যা মামলা দিয়েছিল। অত্যন্ত ভয়ের কথা আজকে এই আওয়ামী লীগ তাদের যোগসাজে এদেশে বিরাজনীতিকরণ চালাচ্ছে।

তিনি বলেন, আজকে অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে মানুষের বাক স্বাধীবতাকে কেড়ে নেয়া হয়েছে। এক কথায় ১৯৭৫ সালে তারা যেটা করতে পারেনি আজকে তারা গায়ের জোরে সেই একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করতে চলেছে। একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করার জন্যই আজকে তারা রাষ্ট্রের সব প্রতিষ্ঠানকে ধ্বংস করে দিচ্ছে।


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর