মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১২ আশ্বিন, ১৪২৯ | ৩০ সফর, ১৪৪৪

মূলপাতা আঞ্চলিক রাজনীতি

বাবুনগরীকে আফগানিস্তানে পাঠানোর হুঁশিয়ারি দিলেন তাপস


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ৬:৩৮ : অপরাহ্ণ

হেফাজতে ইসলামের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীকে আফগানিস্তানে পাঠিয়ে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস। ২০১৩ সালে ৫ মে’র কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘জনাব বাবুনগরী, আপনকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই সেই ৫ মে’র কথা, ভুলে গেছেন? মনে করেছিলেন শাপলা চত্বর দখল করলে বাংলাদেশ দখল হয়ে যাবে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা যতদিন জীবিত আছি। এ বাংলাদেশ কেউ দখল করতে পারবে না।’

বুধবার (৯ ডিসেম্বর) সুপ্রিম কোর্টের সামনে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে তিনি এই হুঁশিয়ারি দেন। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপনে বাধা এবং তা ভাংচুরের প্রতিবাদে সুপ্রিম কোর্ট আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ এ কর্মসূিচর আয়োজন করে।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ফজলে নূর তাপস এই সংগঠনের সদস্য সচিব।

বাবুনগরীকে উদ্দেশ করে তাপস বলেন, ‘জনাব বাবুনগরী, আপনারা ভুলে গেছেন। মনে করেছেন একটি ভাস্কর্য ভাঙলেই বুঝি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নষ্ট হয়ে যাবে। বাংলার মাটিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি কটূক্তি, বঙ্গবন্ধুর প্রতি আঘাত, বাংলার স্বাধীনতার উপর আঘাত বাংলার দামাল ছেলেরা কোনো দিন বরদাস্ত করবে না। সুতরাং আপনারা নিবৃত্ত হবেন এবং এই দেশকে একটি শান্তির নীড় হিসেবে আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যেভাবে পরিচালিত হচ্ছে সেই কাতারে আপনারা আসবেন আর না হলে আপনারা যে স্লোগান এক সময় দিয়েছিলেন, বাংলা হবে আফগান সেই আফগানিস্তানে আপনাদের পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

যুদ্ধাপরাধের বিচার, জঙ্গিবাদ দমনের উদাহরণ টেনে ফজলে নূর তাপস মৌলবাদ মোকাবেলার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, ‘ইনশাল্লাহ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলার বুক থেকে সকল মৌলবাদ নিষ্পন্ন হবে। সকল মৌলবাদকে আমরা নিশ্চিহ্ন করে দিব এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় সকল প্রগতিশীল শক্তি আবার ঐক্যবদ্ধভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ওপর এই অপশক্তির আক্রমণ আজকে নতুন না। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতাকে স্বপরিবারে হত্যা করার মাধ্যমে তারা মনে করেছিল যে, বাংলার বুক থেকে বঙ্গবন্ধু নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। কিন্তু তা নিশ্চিহ্ন হয়নি। কারণ বঙ্গবন্ধু মানে বাংলাদেশ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বঙ্গবন্ধু। বঙ্গবন্ধু একটি চেতনা, একটি আদর্শ, যেটি বাঙালি জাতির অন্তরে গেঁথে আছে। কোনোভাবেই সেটা মুছে দেওয়া যাবে না। নিশ্চিহ্ন করা যাবে না।’

দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আইনজীবীদের ভূমিকার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী তাপস বলেন, ‘ভাস্কর্য ভেঙে তারা মনে করেছে, তারা বিজয়ী হয়ে গেছে। আমরা আইনজীবী, যখনই সংবিধানবিরোধী কার্যক্রম হয়েছে, যখনই গণতন্ত্রকে আক্রমণ করা হয়েছে, যখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় আঘাত এসেছে তখনই দাঁতভাঙা জবাব দিয়েছি। এখনও আমরা প্রস্তুত দাঁতভাঙা জবাব দেওয়ার জন্য।’

অ্যাটর্নি জেনারেল ও সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ এম আমিন উদ্দিন বলেন, ‘একাত্তরের পরাজিত শক্তি যারা পঁচাত্তরে চেষ্টা করেছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে বাংলাদেশকে পিছিয়ে দিতে, তারা চেষ্টা করেছিল পৃথিবীর মানচিত্র থেকে বাংলাদেশকে মুছে দিতে। তারা সেদিন সফল হয় নাই। আজকেও তারা সফল হবে না।’

প্রতাবাদ সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন আইনজীবী বশির আহমেদ, আজহার উদ্দিন ভূঁইয়া, লায়েকুজ্জামান মোল্লা, মোখলেছুর রহমান বাদল, সানজিদা খানম, এসএম মুনীরসহ অনেকে।


Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

আরও খবর