বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২২ | ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ১২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪

মূলপাতা আঞ্চলিক রাজনীতি

দুই পক্ষের বিরোধ নিরসনের উদ্যোগ নিলেন রেজাউল করিম

নগর যুবলীগে ঐক্যের সুর


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :২০ নভেম্বর, ২০২০ ৬:১৯ : অপরাহ্ণ

যুবলীগ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার দুই পক্ষের বিরোধ নিরসনের উদ্যোগ নিয়েছেন নগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক রেজাউল করিম চৌধুরী। নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু এবং চার যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, দিদারুল আলম ও মাহবুবুল হক সুমনের সাথে তিনি ইতোমধ্যে পৃথক বৈঠক করেছেন। দুই পক্ষ তার কাছে ঐক্যের ব্যাপারে নমনীয় মনোভাব দেখিয়েছেন। নগর যুবলীগের একটি সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্রটি জানিয়েছে, সপ্তাহ খানেকের মধ্যে নগর যুবলীগের দুই পক্ষকে নিয়ে একটেবিলে বসতে যাচ্ছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী।

গত ৮ মাস ধরে নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চুর সাথে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড নিয়ে চার যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, দিদারুল আলম ও মাহবুবুল হক সুমনের বিরোধ চলে আসছে। গত ২১ সেপ্টেম্বর সাবেক মন্ত্রী ও নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি এম এ মান্নানের মৃত্যুবার্ষিকীর কর্মসূচিকে ঘিরে তাদের বিরোধ প্রকাশ্যে আসে।

এম এ মান্নানের কবরে এই পাঁচ যুবলীগ নেতা পৃথকভাবে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চুর বিরুদ্ধে সাংগঠনিক কর্মকাণ্ডে স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ এনে একজোট হন চার যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, দিদারুল আলম ও মাহবুবুল হক সুমন। গত ২৮ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন, ১৮ অক্টোবর শেখ রাসেলের জন্মদিন, ৩ নভেম্বর জেল হত্যা দিবস, ১০ নভেম্বর শহীদ নূর হোসেন দিবস এবং সর্বশেষ ১১ নভেম্বর যুবলীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি দ্বিধাবিভক্ত হয়ে পৃথকভাবে পালন করেন নগর যুবলীগের আহ্বায়ক ও চার যুগ্ম আহ্বায়ক।

দলীয় সূত্রের খবর, আসন্ন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী নগর যুবলীগের দুই পক্ষকে ঐক্যবদ্ধ করার উদ্যোগ নিয়েছেন। যুবলীগের দুই পক্ষের বিরোধ নির্বাচনে প্রভাব পড়তে পারে এমন শঙ্কায় তিনি দুই পক্ষের মধ্যে ঐক্যের মধ্যস্থতার উদ্যোগ নিয়েছেন।

 

দুই পক্ষের মধ্যে ঐক্যের মধ্যস্থতার উদ্যোগ নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করে রেজাউল করিম চৌধুরী রাজনীতি সংবাদকে বলেন, ‌‌‌‌‌‌‌‌দুই পক্ষকে নিয়ে আমি ইতোমধ্যে বৈঠক করেছি। ভুল বুঝাবুঝির কারণে তাদের মধ্যে দূরত্ব হয়েছে। সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড নিয়ে তাদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। দুই পক্ষকে নিয়ে সপ্তাহ খানেকের মধ্যে আমি একটেবিলে বসবো।

নগর যুবলীগের আহ্বায়ক মহিউদ্দিন বাচ্চু রাজনীতি সংবাদকে বলেন, আমি গঠনতান্ত্রিক উপায়ে সাংগঠনিক কর্মসূচি পালন করছি। এরপরও ঐক্যের প্রশ্নে আমি ইতিবাচক থাকতে বাধ্য। আমি সংগঠনে কোনো বিভেদ চাই না, ঐক্য চাই।

নগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা রাজনীতি সংবাদকে বলেন, আমাদের মধ্যে ব্যক্তিস্বার্থ নিয়ে বিরোধ নেই। সাংগঠনিক সমন্বয়হীনতার কারণে আমাদের মধ্যে বিভেদের দেয়াল তৈরি হয়েছে। সংগঠনের স্বার্থেই আমরা রেজাউল করিম চৌধুরীর ঐক্যের ডাকে সাড়া দিয়েছি।

 

 


আরও খবর