শুক্রবার, ২৪ মে, ২০২৪ | ১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৫ জিলকদ, ১৪৪৫

মূলপাতা আন্তর্জাতিক

গবেষণা : রেস্তোরাঁ-মুদি দোকানে করোনার ঝুঁকি বেশি, বিমানযাত্রায় কম


প্রকাশের সময় :৯ নভেম্বর, ২০২০ ১০:৫০ : অপরাহ্ণ
Rajnitisangbad Facebook Page

বিভিন্ন দেশ করোনা মহামারির সংক্রমণ থেকে বাঁচতে আরোপিত বিধি নিষেধ শিথিল করে বিমানযাত্রা শুরু ও মুদি দোকান-রেস্তোরাঁ খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেয়ার মধ্যেই এ নিয়ে নতুন করে সতর্ক করলেন চিকিৎসা বিজ্ঞানী ও গবেষকরা।

আমেরিকার হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা বলছেন, বিমানযাত্রার চেয়ে মুদির দোকানে কেনাকাটা করা বা রেস্তরাঁতে খাওয়ার ফলে করোনা-সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে অনেক বেশি। এর কারণে হিসেবে তারা বলছেন, বেশ কিছু সুরক্ষাবিধি মেনে চললে বিমানযাত্রীরা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে পারেন। যেটা মুদিখানা কিংবা রেস্তোরাঁয় সম্ভব হয় না।

চলতি সপ্তাহে বিশ্ববিদ্যালয়ের টি এইচ চ্যান স্কুল অব পাবলিক হেলথ-এর গবেষকরা একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন। ‘এভিয়েশন পাবলিক হেলথ ইনিশিয়েটিভ’ নামের ওই গবেষণাপত্রের পর্যবেক্ষণ, অতিমারির আবহে মুদিখানায় গিয়ে জিনিসপত্র কেনাকাটা করা অথবা রেস্তরাঁয় খেতে যাওয়া এই মুহূর্তে যথেষ্ট বিপদের। সেই তুলনায় বিমানযাত্রায় বরং কোভিড সংক্রমণের আশঙ্কা কম।

কেন এই যুক্তি? হার্ভার্ড গবেষকদের মতে, বেশ কিছু সুরক্ষাবিধি মেনে চললে বিমানযাত্রীরা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে পারেন। এ বিষয়ে উৎসাহদানের জন্য সে রকম কিছু সুরক্ষাবিধির কথা ফের মনে করিয়ে দিয়েছেন তারা।

কী সে সুরক্ষাবিধি? গবেষকেরা জানিয়েছেন, সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে বিমানযাত্রার নির্দেশিকায় বার বার হাত ধোওয়া, সর্বদা মাস্ক পরে থাকা-সহ বিমানে যাতে সব সময় ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা থাকে, তা দেখতে হবে। পাশাপাশি, বিমানে এবং বিমানবন্দরে যাতে পর্যাপ্ত হাওয়া চলাচল করতে পারে, সে দিকেও নজর রাখতে হবে। এ ছাড়া, নিয়মিতভাবে বিমান পরিষ্কার রাখা এবং স্যানিটাইজ করার দিকেও জোর দিতে হবে। এই সব সুরক্ষাবিধি মেনে চললেই বিমানযাত্রায় কোভিডে সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকি রেস্তরাঁয় খাওয়া বা মুদির দোকানে যাওয়ার থেকে একধাক্কায় অনেকটাই কমিয়ে আনা যাবে বলে দাবি গবেষকদের।

হার্ভার্ডের গবেষণাপত্রে করোনাভাইরাসের নিয়ন্ত্রণে এর বিপদ নিয়ে জনসচেতনতা বাড়ানোর বিষয়েও জোর দেওয়া হয়েছে। এ নিয়ে সাধারণ মানুষকে যথাসম্ভব শিক্ষিত করার প্রয়োজন রয়েছে বলেও মনে করেন গবেষকরা। গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ‘বিমানযাত্রার সময় সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে কী কী বিষয়ে সচেতন থাকা উচিত, তা নিয়ে প্রচার চালাচ্ছে বিমানসংস্থা এবং বিমানবন্দরগুলি। এর মধ্যে বুকিং বা চেক-ইনের সময় অথবা উড়ানে জনস্বাস্থ্যের সুরক্ষার দিকগুলি তুলে ধরা হয়েছে। বিমানকর্মীদের এ বিষয়ে নিয়মিত ট্রেনিংও দেওয়া হয়। কোনও যাত্রী কোভিড-সন্দেহভাজন হলে তাকে চিহ্নিত করা বা আইসোলেট করাও সেই ট্রেনিংয়ের অঙ্গ।’

এদিকে জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শুধুমাত্র আমেরিকাতেই করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৮৯ লাখ ৪৫ হাজার ৮৯১। গোটা বিশ্বে এখনও পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১১ লাখ ৮২ হাজারের বেশি রোগীর।

মন্তব্য করুন
Rajnitisangbad Youtube


আরও খবর