রবিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২২ | ১২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ | ২ জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪

মূলপাতা আঞ্চলিক রাজনীতি

ক্ষোভে ফুঁসছেন পদবঞ্চিতরা

চট্টগ্রাম নগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটিতে বিবাহিত নেতা, আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ


রাজনীতি সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশের সময় :৩০ ডিসেম্বর, ২০২০ ১০:৫৮ : অপরাহ্ণ

ছাত্রদল চট্টগ্রাম মহানগর শাখার আহ্বায়ক কমিটিতে তিন বিবাহিত নেতা স্থান পেয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ কমিটি নিয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগও উঠেছে। এ কমিটিকে প্রত্যাখান করে ক্ষোভে ফুঁসছেন ছাত্রদলের পদবঞ্চিত ও তৃণমূল নেতাকর্মীরা।

গত ২৬ ডিসেম্বর নগর ছাত্রদলের ৩৫ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্র। এতে বন্দর গোসাইলডাঙ্গা এলাকার ছাত্রদল নেতা সাইফুল আলমকে আহ্বায়ক ও খুলশী এলাকার শরিফুল ইসলাম তুহিনকে সদস্য সচিব করা হয়। ২০০৫ থেকে ২০১১ সাল পর্যন্ত এসএসসি পাশ নেতাদের স্থান দেওয়া হয় এই আহ্বায়ক কমিটিতে।

নগর ছাত্রদলের পদবঞ্চিত ও তৃণমূল কর্মীদের একাংশ এ কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। তারা এ কমিটি বাতিলের দাবিতে গত চার দিন ধরে বিক্ষোভ করে আসছেন।

নগর ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাদের অভিযোগ, টাকার বিনিময়ে এই কমিটি হয়েছে। ত্যাগী নেতাদের বাদ দিয়ে অযোগ্য নেতাদের নিয়ে কমিটি করা হয়েছে। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ আহ্বায়ক কমিটির কয়েকটি পদ নিয়ে আর্থিক লেনদেন করেছেন। কমিটির তিন যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুর রহমান মাস্টার আরিফ, শহিদুল ইসলাম সুমন ও জাহেদ হোসেন খাঁন জসি বিবাহের বিষয়টি গোপন করে কমিটির পদ বাগিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ করছেন তারা।

এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে আরিফুর রহমান মাস্টার আরিফ ও জাহেদ হোসেন খাঁন জসির মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাদের পাওয়া যায়নি।

শহিদুল ইসলাম সুমন রাজনীতি সংবাদকে বলেন, আমার বিবাহের বিষয়ে কারো কাছে কোনো তথ্য-প্রমাণ নেই।

দলীয়ভাবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যুগ্ম আহ্বায়ক জাহেদ হোসেন খাঁন জসি আগে কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন।

ছাত্রদলের গঠনতন্ত্রে নেতাদের একসাথে দুটো সাংগঠনিক জেলার কমিটিতে থাকার নিয়ম নেই বলে জানা গেছে।

নগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব শরিফুল ইসলাম তুহিনের কাছে এসব অভিযাগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি কোনো মন্তব্য করেননি।

ছাত্রদল সভাপতি ফজলুর রহমান খোকনের মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি।

চট্টগ্রাম মহানগর শাখার কমিটি গঠনে সমন্বয়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহসভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণ। এসব অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি রাজনীতি সংবাদকে বলেন, যে তিন জন নেতা বিবাহের বিষয়টি গোপন রাখার অভিযোগ উঠেছে, এটার নূন্যতম প্রমাণ পেলে তাদের অব্যাহতি দেওয়া হবে। শুধু তাই নয়, তাদের বিরুদ্ধে আরো কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।

কমিটি নিয়ে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে কেউ যদি সুনির্দিষ্টভাবে আমার কাছে লিখিত অভিযোগ দেয় তাহলে এটা তদন্ত করা হবে। ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সংসদের কার্যনির্বাহী বৈঠকে এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

ক্ষোভে ফুঁসছেন ছাত্রদলের পদবঞ্চিতরা
গত রোববার (২৭ ডিসেম্বর) ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা নগরীর কাজীর দেউড়ি মোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। তারা মিছিল নিয়ে নূর মোহাম্মদ সড়কের নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয়ের সামনে গিয়ে অবস্থান নেন। তখন সেখানে ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটির আনন্দ সমাবেশ চলছিল। এসময় দুই পক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

পরদিন সোমবার রাতে ছাত্রদলের পদবঞ্চিত নেতাকর্মীরা নাসিমন ভবন দলীয় কার্যালয়ে গিয়ে আগুন দেয়।

নগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি বাতিলের দাবিতে নাসিমন ভবন থেকে ক্ষোভের আগুন ছড়িয়ে পড়ছে তৃণমূলে।

দলীয় সূত্রের খবর, আজ (৩০ ডিসেম্বর) বুধবার নগরীর চান্দগাঁও, বাকলিয়া ও পাঁচলাইশ এলাকায় বিক্ষাভ করেছেন ছাত্রদলের তৃণমূল কর্মীরা। এর আগে মঙ্গলবার নগরীর আকবর শাহ এলাকায় বিক্ষোভ করেন ছাত্রদলের কর্মীরা।

ক্রমাগত ক্ষোভে ফুঁসছেন ছাত্রদলের পদবঞ্চিতরা। এতে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হচ্ছে।

পদবঞ্চিত চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্রদল নেতা আমজাদ হোসেন শাকিল বলেন, শুনেছি, কমিটিতে কয়েকজন বিবাহিত নেতা রয়েছেন। অনেকে বলছেন, কমিটির অনেক নেতা টাকার বিনিময়ে পদ পেয়েছেন। কেন্দ্রীয় কমিটি এসব অভিযোগ তদন্ত করলে হয়তো আসল তথ্য বেরিয়ে আসবে।

পদবঞ্চিত হালিশহর এলাকার ছাত্রদল নেতা আরিফুল ইসলাম আরিফ বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান নির্দেশ দিয়েছিলেন গত ১০-১৫ বছর ধরে দলের আন্দোলন-সংগ্রাম যাদের সরব উপস্থিতি ছিল তাদেরকে দিয়ে ছাত্রদলের কমিটি গঠন করতে। কিন্তু নগর ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি করা হয়েছে অযোগ্য নেতাদের দিয়ে। যারা একটি মিছিল নিয়ে সভা-সমাবেশে আসতে পারেনি। এটা আঞ্চলিক কমিটি করা হয়েছে। তাই আমরা প্রত্যাখ্যান করেছি।


আরও খবর